Obituary: Abu Musa S. Ahmad (15th March 2014) By Khwaja Sayeed Shahabuddin

March 17, 2014

ABU MUSA S.AHMAD, S.PK., SK., TQA  a former Secretary to the Government of Pakistan, Ministry of Home and Kashmir Affairs, passed away in Karachi yesterday, 15th March 2014 and was buried in the Defence Authority Gizri Graveyard  next to the grave of his wife – my sister – the late Bilquis Ahmad. May his soul rest in eternal heavenly peace.

MUSA, as Abu Musa Sharfuddin Ahmad was lovingly and affectionately known in his family, and to relations, friends and service colleagues..He lived in Karachi .with his elder daughter Naheed, her husband Sami Mustafa and their children Naadir and Taymur. He returned from Washington, where he was living by himself, in April 2005, when his daughter Naheed went to the United States to bring him and she was joined by her eldest son Daanish from the U. K.

Apart from his personal life, from which there are many lessons to be learnt, as a public servant he held highly responsible positions in the Central and Provincial governments of Pakistan, the country he opted to serve when the partition of India took place in 1947. At that time he was posted as Deputy Commissioner of Police, Calcutta, which was a great honour for him as, never before had any officer with less than twelve years service been appointed to this post.

The various appointments he held in Pakistan included:  Secretary to the Government of Pakistan, Ministry Home and Kashmir Affairs; Secretary, Information, Basic Democracy & Local Self Government, in East Pakistan; Deputy Director, Intelligence Bureau; Director, Bureau of National Reconstruction in the Eastern Wing, and later in Karachi; Managing Director, Pakistan Television Corporation; Vice Chairman, Export Promotion Bureau, Chairman, Trading Corporation of Pakistan etc. He had the privilege of witnessing from very close quarters what went on in the country in those days. Unfortunately, or may be fortunately for him, he became a victim of intrigues and power politics. These actions caused him much pain and frustration.

One of his foreign associates who had known about his achievements, and noticed the way he was being treated by the Government, became the source of his move from Islamabad to Washington in 1973 to work for the World Bank for almost ten years. On his retirement from the Bank he served as a Consultant to The World Bank and various United Nation Organisations for three years or so, and then retired finally and settled down in Washington along with his wife Bilquis.

Musa, the eldest son of Janab Serajuddin Ahmed Sahib, was born at Kalia, Jessore (Eastern Bengal) on 1st March 1917, and went to various schools as he moved from place to place according to his father’s postings. His father was an educationist, having graduated from the Muslim University, Aligarh, where one of his room-mates was Mr. H. S. Suhrawardy. After graduating from the Dhaka University Musa joined the Indian Police Service in the year 1941. With him, at the Police Training College, Sardah, was Khwaja Muhammad Kaiser (later, a former Pakistani Diplomat), who became one of his closest friends.  He served as Sub-Divisional Police Officer (SDPO) in various districts for several years.

However, when he was barely twenty three years old, and had been in the Police Service for little over a year, he was called upon to face the greatest tragedy of his life till then. His parents – his father was then the Headmaster of Barisal Zilla School – passed away within thirty six hours of each other. Apart from the grief and sorrow, Musa had to take over the responsibility of taking care of his orphaned, two brothers and four sisters, all of whom were very small.  They were divided and sent to live with Musa’s two married sisters and two uncles. The break up of the family was cruel, but, unavoidable under the circumstances. It was fortunate that his brothers and sisters found loving and caring homes, though separated from each other.

It was in the year 1945 when Musa was posted as SDPO, Narayanganj, for the second time, that he felt concerned about providing a home for his brothers and sisters who had been parted from one another since August 1942. It was providential that around this time a relation of his asked him if he would agree to propose marriage with the daughter of Khwaja Shahabuddin. He said, yes, without considering the pros and cons of such a match. In the words of Musa himself: “It seems now that Allah, in His infinite mercy, selected this match as His greatest blessing for me.

I have not been able to figure out to this day, why Abbu (Khwaja Shahabuddin) consented to this marriage. Bilquis was his favourite child. What induced him to give her in marriage to me, who had such heavy responsibilities, and no income except my salary which, however good at the time, was no where near what was needed for a family with six children to be brought up.”

(All quotations are extracts from the manuscript of his unpublished book: “My Life: An Autobiography of a Public Servant” which was serialized in the Dhaka Nawab Family Newsletter.)

Musa and Biquis were married in Calcutta on 13th May 1945. The wedding was a very simple affair. The Barat (the Bridal Party) consisted of a few elders of his family and included Omar Mama (Mr. A. Z. Muhammad Omar, though an uncle by relation, they have been together right from their school days,. He passed away a few years ago having attained the age of 90 years in 2006; and a few others which included his very close friend K. M. Kaiser (KMK) as the most prominent outsider.  The Nikah took place in the morning followed by Rukhsati the same night, and they left for Darjeeling the following night for their honeymoon.

Narayanganj, where Musa was posted as Sub-Divisional Police Officer (SDPO), was to be their first home together. Shortly after their arrival all his six brothers and sisters, for whom they were to be responsible, were brought over and left with them.  As Musa writes: Any other wife would have revolted at this – we were hardly married for a month – as on our first few days in our own residence we had six children to be responsible for. But Bilquis took all this in her stride and made them feel at home and happy, played with them and really cared for them. She was like a life-long loving, caring sister to them, and over the years she never got tired of her role and gave my orphaned brothers and sisters her best, treating them as her own. My life was transformed with peace and happiness.” 

When the partition of India took place on 14th August 1947, Musa was posted as the Superintendent of Police, Rajshahi District, and in 1949 he was appointed Assistant Director, Intelligence Bureau, Dhaka, and transferred to the Intelligence Bureau, Karachi in 1951.

In 1955 the South East Treaty Organization (SEATO) and the Baghdad Pact, which later became Central Treaty Organization (CENTO), came into being, and Musa represented Pakistan at the meetings of the Security Committee of both these organizations from 1955 to 1958.

In the first part of the concluding chapter of his book, Musa writes extensively and in great detail about his study of the Holy Qur’an which he has been doing for the past forty years, and the Message it has for all humanity containing guidance, knowledge and wisdom. It makes him contemplate on the oft repeated verse from Surah Ar-Rahman: “Then which of the favours of thy Lord will ye deny”, taught to him by his father who was the most pious man that he ever came across.

Once more Musa had to face a very serious situation about which he writes: “I cannot help but take my mind back to December 1989, when, my love for my wife, BILQUIS, and how I needed her, came to sharp focus. She had a very serious heart attack and hovered between life and death in the Intensive Care Unit of the Suburban hospital, in Maryland, for over a month and a half. Right from the start the doctors told me that chances of her recovery were very slim, and within a short time her kidney failed and her lungs got flooded. Other complications like blood infection, bladder infection, intestinal infection and ulcer developed.

Dr. Tariq Mahmood who used to look after us generally, an excellent cardio-vascular specialist, was away on holiday and came back three days after Bilquis was admitted to the hospital. He told me that the situation is not as grim as the other doctors feared, and that Bilquis did have a chance for recovery. But then all other complications set in and even Dr. Mahmood could not give me any hope, but, asked me to pray to Allah. He, however, left no stone unturned to give Bilquis a chance. He put about eight other specialists to take care of the varied complications. All of them worked very hard, and the nurses became very fond of her and did an excellent job of complying with the directions given by the doctors. It is impossible to describe the period of tension and anxiety that I went through along with  Naheed, her husband Sami, Nuzhat and my grandson Daanish, all of whom were with us at the time.”

“The Lord Almighty listened to our prayers, and by His grace and infinite mercy granted Bilquis a miraculous recovery. She came home after a two-month stay at the hospital I shall not, with every breath of my life be able to express my deep sense of gratitude to Allah Ta’ala for showering His grace and merciful blessings on Biquis, our children and me. Then which of the favours of thy Lord will ye deny?”

During the next eleven years, in spite of poor health, Bilquis tried to lead as normal a life as she could, and made several trips to Pakistan. In early 2000 she was not too well but forced herself to come to Pakistan. She even went to Dhaka to meet her relations. Then it was time for them to return to the United States. Bilquis was not feeling too well but was determined to travel and that too via Islamabad as she wanted to meet her sister Hushmat in Rawalpindi. The night before their departure from Rawalpindi for America she fell ill and had to be hospitalized.

The Lord Almighty, the Most Gracious, the Most Merciful granted one of His most beloved creatures, Bilquis Ahmad, the opportunity to say farewell to all her near and dear relations and friends before calling her to return to her eternal heavenly home in the early hours of Friday 10th March 2000, to rest there in peace. Her body was brought to Karachi and buried at the Defence Housing Authority graveyard in Gizri.

“Looking back on my life” wrote Musa “I feel most humbly grateful to Allah Subhanahu wa Ta’ala, the Most Gracious and the Most Merciful, for His blessings that He has showered on me in my personal, family, social and professional life. When I review my entire life in its varied aspects, which I do frequently, I am made to realize the implications of the oft repeated verse in Surah  Ar-Rahman, the 55th chapter of the Holy Qur’an: Then which of the favours of thy Lord will ye deny.”

                                                                                       ****


Obituary: Khwaja Waseem Sudderuddin, 19th February 2014

February 25, 2014

Dear All,

Thank you very much for your messages of condolences and sympathy on the passing away of the late Khwaja Waseem Sudderuddin, in Karachi, on Wednesday 19th February 2014.

The condition he was in, Allah Ta’ala saved him from extreme pain and suffering. May his soul rest in eternal heavenly peace in the company of those HE loves most.

“To Allah we belong, and to Him will be our return”

We sincerely hope that each and everyone of you will be kind and gracious to receive this e-mail addressed, jointly, to more than 50 relatives and friends.
kkkIt has meant a lot to us to receive e-mails, telephone calls and personal visits from such a large number of relatives and friends.

May the Lord Almighty grant us courage and patience to bear this irreparable loss and accept HIS will with faith and fortitude.

Yours-in-grief,
Ayesha (Sudderuddin) and Sayeed Shahabuddin

 

Obituary: Najma Quader (California, US)

August 26, 2013

NAJMA, the eldest of four children – one girl and three boys – of Khwaja Muhammad Ismail and Begum Obaida Khatoon – and wife of Khwaja Rahman Quader, passed away around 9.30 p.m., California time, on 25th August 2013. May her soul rest in eternal heavenly peace in the company of those Allah Ta’ala loves most. She was 89 years, nine months and twenty four days old. She and Rahman Bhaijan celebrated their Seventieth Wedding Anniversary on 21st June 2013. at Irvine, California. Their two sons, Tanvir Quader (eldest) and Shaheer Quader (youngest) also live in Irvine about an hour’s drive from them. They, especially Najma, had not got over the loss of their son Shabbir, who died in 1991, after a long fight against cancer. He and his mother had graduated (Bachelor of Arts – B.A.) at the same time.

Najma was a very active Girl Guide along with my sister, the late Tahera Kabir, and both of them held highest positions in the Organization and did social work in the former East Pakistan, In Irvine, California, Najma, kept herself busy in doing voluntary work for the Senor Citizens until she fell and received serious injuries and was hospitalized on 15th August 2013, where she spent over a week before being shifted to a Hos pice Care Centre, which is situated very close to Shaheer’s house.

She was one of the five closest and the most dearest friend, I have had in my life to date. All of them have now passed away. Both, my wife Ayesha and me, are very closely related to her. Ayesha’s grandfather (Dada), Khwaja Badruddin, Najma’s father K. M. Ismail, and my grandmother (Nani) Asghari Begum were siblings, which makes her my aunty, though she graced this world with her presence ten days after me. She was born on 1st November 1923 and I was born on 22nd October 1923. As kids we were in the same class at St. X’avier’s Convent in Dhaka, and, in one of the school concerts, we were partners in a group of twelve boys and girls, singing “London Bridge has broken down” . As we grew up our friendship developed to such an extent that I felt closer to her than my own sister, the late Tahera Baji. During the three years (1939-41) when I was a cadet in the Training Ship Dufferin, in Bombay, I always looked forward to receiving her letters which were full of news about our age group. I remember, in one of her letters, she wrote about “RQ” (as we called Rahman Bhaian) but there was no hint that they would get married. They did tie the knot in June 1943, while I was enjoying the hospitality of the Japanese Imperial Army in the Dutch East Indies (now Indonesia).

Najma used to come over to our house “Bait-ul-Amn” every morning as she and Tahera Baji had private tuition in preparation for their Matriculation Examination. On certain days of the week they used to go over to the house of Uncle Mahmood Hasan (father of Samee-ul-Hasan and the late Riffi) for lessons in English literature. In the afternoon her brothers Anwar and Hamid (during their holidays from Aligarh Muslim University School) used to join us to play hockey, football and cricket. Her poem “Sixty Years ago” about the time spent in Bait-ul- Amn is attached, followed by a poem “In Bait-ul-Amn as teenagers in the thirties” which I wrote, and her poem “The saga of Riverview” about her home which was situated next to the second gate of Ahsan Manzil Palace. (Please see the attachment).

Both Ayesha and I are very fond of Rahman Bhaijan and hope, by Allah’s grace and mercy, he is bearing his great loss and aceepting the will of God, with faith and fortitude. Ayesha and I convey our heartfelt condolences to him, Tanwir, Shaheer and Connie, Hamid and Lucy, Saman and Pinky and all their respective families.

TO ALLAH WE BELONG AND TO HIM WILL BE OUR RETURN

Deeply grieved,
Sayeed and Ayesha


DNF Eid Milan 2013 – New York

August 6, 2013

All family members in North America are cordially invited to the 2013 Eid Milan party. We will try our best to make this a colorful event with mixture of cultural shows. The refreshments to be served are based on one dish party theme. All you need to do is fill up and save the following form on the web- Menu registry form (Please use Mozilla Firefox if encounter difficulty opening with Internet Explorer) Your joyful participation is critical for the success of this event. Confirm your participation no later than Friday August  9th. Or call me at 646 536 2855 (office) 646 379 3603 (cell) and stay tuned to this website for updates. Please make a note that there is a $10.00 entry fee per family to cover the rental fee of the hall which is due upon your arrival. Thanks, Anas Khwaja When: Sunday Aug 11 between 3pm to 7pm Where: Central Queens Y 67-09 108th Street Forest Hills, NY 11375 Tel: 718-268-5011


Old Dhaka and Nostalgia: No lessons learned

June 3, 2013

Image

Even after the devastating Nimtoli inferno, chemicals are still being sold from shops on the ground floor of residential buildings in Old Dhaka. The photo was taken from SCC Road in Armanitola. Photo: Star

Little action has been taken to make Old Dhaka a safe place for residents even after the deadly Nimtoli fire from chemicals three years ago.
The inferno killed as many as 123 people and injured 200 others on June 3, 2010 as it spread by inflammable chemicals stored on the ground floor of a residential building. But that seems to be a less stern warning against such chemical storage as many buildings at Nabab Katra, Bangshal, Siddique Bazar, Sat Rowza, Babu Bazar and Armanitola still have factories with flammable objects on their ground floors.
Following the incident, the Dhaka district administration carried out drives for four days in Old Dhaka and sealed off 25 chemical warehouses, said the then executive magistrate Mohammad Al Amin who had led the operation.
But the mobile court stopped raiding the areas after businessmen of chemical goods appealed to the government for some time for relocation.
There are now about 150-300 chemical wholesale shops between Armanitola and Mitford but not all of them have their godowns there, said Mansur, manager of a shop, Nazrul and Brothers, a chemical supplier in Armanitola.
Many warehouses, including his shop’s, have already been shifted to Fatullah, Naraynaganj in the last three years, he said, adding some shops keep small amount of chemicals for retail customers.
“The businessmen too want to relocate their establishments outside Dhaka — to places with sparse human habitation for safety,” said Brig Gen Ali Ahmed Khan, director general of Fire Service and Civil Defence.
The government in 2011 pledged to allot 60 bighas of land in Sonakandi, Keraniganj on the outskirts of the capital for chemical warehouses.
Asked what steps had been taken to shift the chemical warehouses and shops, Industries Minister Dilip Barua told The Daily Star that the shifting required a lengthy bureaucratic process.
The proposal had been discussed at inter-ministerial meetings, he said. If the Awami League-led grand allinace comes to power in the next polls, it will be able to start relocating the chemical warehouses and shops within a year.
However, owners of chemical shops in Armanitola are sceptical about government’s efforts to relocate their godowns elsewhere.
Requesting anonymity, a member of Bangladesh Chemicals and Perfumery Merchant’s Association said, “We have heard that we will be relocated to the shores of the Dhaleswari river. But we don’t know when the process will begin.”
A chemical shop owner of a market in Ohiullah, Armanitola said the chemical businessmen wanted to move out of Old Dhaka because the rent was very high. No building owners want to rent their places to them and when they do they face protests from local people.
Remembering the horror of the night three years back, residents of Nimtoli and their neighbourhoods expressed dissatisfaction over the government’s inaction to change the situation.
Even no action has been taken yet to punish Mohammad Ohid Ullah Mazumder, owner of the warehouse from where the fire generated in 2010, they say. They also demand immediate eviction of all factories that store flammable goods.
“Chemical business is rampant in the areas and there is no effort to stop it,” said Mohammad Mamum, father of seven-year-old Boishakh who had been burnt to death at his shop in Nimtoli on that ill-fated day.
“We don’t want any compensation. We want punishment to those who were responsible for the inferno.”
Gulzar Elahi and his brother Mohammad Faruk lost eleven members of their family in the Nimtoli incident.
“We want people to learn from our mistakes and be aware of who they rent their places to,” said Gulzar.
He said he had been unaware of his tenant storing flammable objects on the ground floor. “The tenancy deed clearly stated that no flammable object could be stored.”
At a press conference organised yesterday in memory of Nimtoli victims, Samana Sen, burn and plastic surgeon at Dhaka Medical College Hospital, said that every year 12-14 lakh people receive burns in Bangladesh and of them, 12,000-13,000 patients die.
He emphasised the need for making people aware of the causes of fire and primary medical treatment of burn victims.

Source: http://www.thedailystar.net/beta2/news/no-lessons-learned/


Savar Tragedy

April 28, 2013

“Inna lillahi wa inna ilaihey rajeoun”

Our hearts and prayers go out to the hundreds of people in Dhaka who lost their lives when a building collapsed in Savar and the families that were affected by this tragedy.

See link: http://www.bbc.co.uk/news/world-asia-22325779

 

Note: Shukr-Al-Humdulillah, all the family members of DNF are safe and have been accounted for.

 

 


আমিন মোহাম্মদ গ্র“প কোর্ট অব ওয়ার্ডস ও নবাব এস্টেটের হাজার হাজার বিঘা জমি দখল করেছে Amin Mohammad Group grabs Dhaka Nawab estate’s thousands of bighas of land

March 13, 2013

Source: যুগান্তর রিপোর্ট।
77480_1 (1)আমিন মোহাম্মদ গ্র“প আশুলিয়া মডেল টাউন হাউজিং প্রকল্পের নামে নিরীহ গ্রাহকদের প্রতারণার ফাঁদে ফেলে হাজার হাজার কোটি টাকা আÍসাৎ করলেও রহস্যজনক কারণে সরকার নিশ্চুপ। গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় এবং রাজউকসহ সরকারের সবগুলো প্রতিষ্ঠানই যেন চোখ বন্ধ করে রেখেছে। একটি জালিয়াত চক্রের মাধ্যমে দেশের হাজার হাজার নিরীহ গ্রাহক চরমভাবে প্রতারিত হলেও কারও যেন কোন দায়িত্ব নেই। তাহলে সবাই কি জেগে ঘুমাচ্ছেন? এসব জাল-জালিয়াতি ও প্রতারণা দেখার কি কেউ নেই? অভিযোগ উঠেছে, কাঁড়ি কাঁড়ি টাকার বিনিময়ে সবাই ‘ম্যানেজড’। আমিন মোহাম্মদের লোকজনের সঙ্গে রাজউক ও মন্ত্রণালয়ের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের পারস্পরিক যোগসাজশের কারণেই তারা রহস্যজনক নীরবতা পালন করে আসছেন। ফলে কেউই এখন আইন প্রয়োগে উৎসাহী নন। হাজার হাজার কোটি টাকা আÍসাৎ ও মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করে এখন বাঁচার জন্য আশুলিয়া মডেল টাউন কর্তৃপক্ষ অবৈধ টাকা খরচ করে সরকারের বিভিন্ন সংস্থাকে ‘ম্যানেজ’ করার জন্য উঠেপড়ে লেগেছে। শুরু করেছে জোর তদবির ও লবিং। ভুক্তভোগী গ্রাহকদের জিজ্ঞাসা, সরকারের উদাসীনতার কারণে দেশের নিরীহ সাধারণ মানুষ কি ঠক ও প্রতারকদের বিরুদ্ধে বিচার পাবে না? তাহলে তারা যাবে কোথায়? কিন্তু রহস্যজনক বিষয় হচ্ছে, রাজধানী ঢাকার অদূরে সাভারে প্রকাশ্যে সরকারি খাস, বন বিভাগ ও নবাব এস্টেটের জমি জবরদখল ও জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে বিশাল হাউজিং প্রকল্প গড়ে তোলা হলেও সরকার নীরব। গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় এবং রাজউকও রহস্যজনক আচরণ করছে। গাজীপুর জেলা প্রশাসক, সাভার উপজেলা প্রশাসন, বন বিভাগ ও অন্যান্য সরকারি সংস্থাও কেন নিশ্চুপ? অবৈধ টাকার কাছে কি সব সংস্থাই ম্যানেজড? এই প্রশ্ন এখন হাজার হাজার প্লট ক্রেতার।
সরকারের এই রহস্যজনক নীরবতার সুযোগে আমিন মোহাম্মদ গ্র“প বন বিভাগ, সরকারি খাস ও ঢাকার নবাব এস্টেটের হাজার হাজার বিঘা জমি জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে জবরদখল করে গড়ে তুলেছে এই তথাকথিত হাউজিং প্রকল্প। মিডিয়ায় চটকদার বিজ্ঞাপন প্রচার করে সাধারণ মানুষকে প্রলুব্ধ করে তারা প্লট বিক্রির নামে ইতিমধ্যেই হাজার হাজার ক্রেতাকে সর্বস্বান্ত করেছে। রাজউকসহ সরকারের কোন সংস্থার অনুমোদন না থাকলেও অবৈধভাবে গড়ে তোলা এই হাউজিং প্রকল্পের প্লট বিক্রির মাধ্যমে আমিন মোহাম্মদ গ্র“প অবৈধ টাকার পাহাড় গড়ে তুলেছে। সরকারি সংস্থা ও সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্ত করার জন্য তারা পত্র-পত্রিকায় আশুলিয়া মডেল টাউনের ‘প্লট হস্তান্তর ও রেজিস্ট্রেশন’-এর ভুয়া কথা বলে বিজ্ঞাপন প্রচার করছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, অবৈধভাবে গড়ে ওঠা আশুলিয়া মডেল টাউন হাউজিং প্রকল্পটি ডিটেইল এরিয়া প্ল্যান-ড্যাপের আওতায় পড়েছে এবং এই এলাকায় কোন হাউজিংয়ের কোন অনুমতি নেই। এখানে সাধারণ কৃষি জমি, বনাঞ্চল, নিচু জলাধার ও সরকারি খাস জমি রয়েছে। ভূমি মন্ত্রণালয়ের ভূমি সংস্কার কমিশনের কোর্ট অব ওয়ার্ডস-এর ঢাকার নবাব এস্টেট সূত্র জানায়, এই এলাকার আকরান, খাগান, বিরুলিয়া, দত্তপাড়া ও পাড়াগাঁও মৌজার অধিকাংশ জমিই ঢাকার নবাব এস্টেটের হওয়ায় সেগুলো এখন কোর্ট অব ওয়ার্ডসের সম্পত্তি। আমিন মোহাম্মদ গ্র“পের দখলকৃত ও আশুলিয়া মডেল টাউন নামে হাউজিং প্রকল্পভুক্ত অধিকাংশ জমিই বিতর্কিত। এসব জমি উদ্ধারে কোর্ট অব ওয়ার্ডস নবাব এস্টেট, বন বিভাগ ও এসিল্যান্ড-সাভার মামলা-মোকদ্দমাসহ আইনানুগ ব্যবস্থাও গ্রহণ করেছে। ইতিমধ্যেই কোর্ট অব ওয়ার্ডস রাজউক, ঢাকার জেলা প্রশাসক ও সাভার উপজেলা ভূমি অফিসসহ সংশ্লিষ্ট সব বিভাগকে নবাব এস্টেটের জমি জবরদখল করে আশুলিয়া মডেল টাউন হাউজিং প্রকল্প গড়ে তোলার বিষয়টি জানিয়ে দিয়ে আইনানুগ সহায়তা কামনা করেছে।
সরকারের শীর্ষ মহল থেকে সবাই প্রতারণার বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার কথা মুখে মুখে প্রচার করলেও কার্যক্ষেত্রে এর কোন প্রতিফলন নেই। ক্ষুব্ধ গ্রাহকদের অনেকেই যুগান্তরে ফোন করে আমিন মোহাম্মদ গ্র“পের প্রতারণার সুনির্দিষ্ট অভিযোগ এনে বলেছেন, দেশের সাধারণ মানুষ প্রতারিত হলে কি দেখার কেউ নেই? সরকারের কি দেশের অসহায় ও প্রতারণার শিকার নাগরিকদের প্রতি কোন দায়িত্ব নেই?
জানা গেছে, সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন অফিসের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে যোগসাজশ করে আমিন মোহাম্মদ গ্র“পের লোকজন তাদের প্রতারণা ফাঁস হয়ে যেতে পারে এমন মূল্যবান কাগজ, নথিপত্র, ডকুমেন্ট, দলিল ও পরচা গায়েব করে ফেলেছে। সরকার যদি এই প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে এখনই আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ না করে, তবে হাজার হাজার নিরীহ মানুষ ভয়াবহ ক্ষতির সম্মুখীন হবে। ইতিমধ্যেই আশুলিয়া মডেল টাউনে বুকিং দেয়া অথবা প্লট ক্রয় করা হাজার হাজার মানুষ এখন চোখে-মুখে অন্ধকার দেখতে শুরু করেছেন। তারা আমিন মোহাম্মদ গ্র“পের উত্তরা, ধানমণ্ডি ও মতিঝিল অফিসে ঘোরাঘুরি করেও কোন সুরাহা পাচ্ছেন না। দিন যতই যাচ্ছে, ততই প্রকাশ পাচ্ছে হাউজিং কোম্পানিটির প্রতারণার খবরা-খবর। ভুক্তভোগী গ্রাহকদের দাবি, মামলা-মোকদ্দমায় জর্জরিত ও বিতর্কিত জমিতে গড়ে ওঠা আশুলিয়া মডেল টাউন হাউজিং প্রকল্পের লোকজন যেভাবে প্রতারণা শুরু করেছে, তাতে এই মুহূর্তে হাউজিংটি বন্ধ করে দিয়ে জরুরি ভিত্তিতে তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিত। তা না হলে হাজার হাজার সাধারণ নিরীহ মানুষ পথে বসবে। আর হাজার হাজার কোটি টাকা আÍসাৎকারী আমিন মোহাম্মদ গ্র“পের লোকজন মওকা বুঝে ভুয়া প্রতারক এমএলএম কোম্পানির মতো দেশ ছেড়ে পালিয়ে যাবে।


ঢাকার প্রথম মুসলিম নারী চিত্রশিল্পী Meher Bano-First muslima painter from Dhaka

March 13, 2013

শামিম আমিনুর রহমান Source: Prothom-Alo  তারিখ: ১০-০৭-২০১১

Meher Bano's painting from Moslem Bharat

                                                                                                      ‘মোসলেম ভারত’ পত্রিকায় প্রকাশিত মেহের বানু খানমের আঁকা ছবি

ঢাকার নবাবদের নবাবি এখন কিংবদন্তি। সেই বৃটিশ আমলে ভাগ্যের অন্বেষনে সুদুর উত্তর পশ্চিম ভারত থেকে আগত সাধারণ ব্যাবসায়ি থেকে রীতিমত ঢাকার একচ্ছত্র অধিপতি হয়ে যাওয়া নবাবদের বিলাসিতার অনেক গল্প এখনো শুনতে পাওয়া যায়। অবাক করার মত বিষয় হলো, আমার জন্মভুমি বাংলাদেশ স্বর্ণগর্ভা হলেও, সেই স্বর্ণ তোলার কাজটি তার স্বীয় সন্তানরাই করতে যুগে যুগে ব্যার্থ। ……আবার ডুবো ঘি তে একবার পরোটা ভাজা হলে, সেই ঘি তে দ্বিতীয়বার আর পরোটা ভাজা হলে নবাবরা সেটা খেতেন না। অর্থাৎ প্রতিবার পরোটা ভাজার সময় নতুন ডুবো ঘিতে সেটা ভাজতে হতো। একেই বলে নবাবি চাল। 

নবাবি আমল নেই। তবে নবাবি চালচলন থেকে থাকবে। তবে সেই মাত্রার নবাবির কথা অন্তত স্বাধীন বাংলাদেশে কেউ শুনেছে বলে মনে হয় না। অতীতের সেই নবাবদের স্মৃতি আবার নতুন করে মনে করিয়ে দেবার কৃতিত্ব দেবো মাননীয় অর্থমন্ত্রিকে। কারণ ৩ হাজার কোটি টাকা তার কাছে কিছু না। অন্তত বক্তব্যের মাধ্যমে তিমি সে রকমই বলেছেন।তার পৈতৃক নিবাস ঢাকায় হলে, বিশ্বাস হতো যে তিনি ঢাকার নবাবদের বংশধর। তাই জানতে বড় ইচ্ছে হয় পৈতৃক নিবাস সিলেটে হলেও, তার বংশে কেউ কোনদিন ঢাকার নবাবদের সাথে সম্পৃত্ত ছিল কি না।কারণ একমাত্র নবাবদের পক্ষ্যেই বলা সম্ভব যে কয়েক হাজার কোটি টাকা তেমন কিছু না। 

মোসলেম ভারত পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক আফজালুল হক দুটি ছবি সংগ্রহ করেছেন ঢাকা থেকে। ছবি দুটি এঁকেছেন ঢাকার বিখ্যাত নবাব পরিবারের নওয়াবজাদি মেহের বানু খানম। পত্রিকায় বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে ছবি দুটি ছাপবেন তিনি।
ছবি দুটির পরিচিতি লিখে দেওয়ার জন্য তিনি অনুরোধ করলেন কবি কাজী নজরুল ইসলামকে। কবি ছবি দেখে মুগ্ধ। পরিচিতি না লিখে লিখলেন কবিতা। দুটি ছবির একটি তাঁর মনে যে ভাবের জন্ম দেয়, তারই ফসল ‘খেয়াপারের তরণী’ নামের বিখ্যাত কবিতাটি। কবি নজরুলের বন্ধু মুজফ্ফর আহমেদ লিখলেন, ‘এই কবিতাটিকে ঘিরে যে আধ্যাত্মিক পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে তা একান্তভাবে বেগম সাহেবারই।’
একটি ছিল নদী পারাপাররত নৌকার ছবি এবং অন্যটি বিক্রমপুরের একটি গ্রামের দৃশ্য। যেহেতু নজরুল লিখলেন কবিতা, তাই ওই চিত্র দুটির পরিচিতি লেখার দায়িত্ব বর্তাল সেকালের বিখ্যাত সাহিত্যিক সৈয়দ এমদাদ আলীর ওপর। বেগম সাহেবার দুটি চিত্র ও নজরুলের কবিতা এবং এমদাদ আলীর চিত্র-পরিচয় নিয়ে ১৯২০ সালের আগস্টে অর্থাৎ বাংলা ১৩২৭ সালের শ্রাবণ মাসে কলকাতায় মোসলেম ভারত-এর আলোচিত সংখ্যাটি বের হলো। নদী পারাপাররত ছবিটি রঙিন এবং অপরটি সাদাকালো। অন্য পাতায় কবির পরিচয় ‘হাবিলদার কাজী নজরুল ইসলাম’ আর তাঁর কবিতা ‘খেয়াপারের তরণী’ ছাপা হলো। ‘যাত্রীরা রাত্তিরে হ’তে এল খেয়া পার,/ বজ্রেরি তূর্যে এ গর্জ্জেছে কে আবার?/ প্রলয়েরি আহ্বান ধ্বনিল কে বিষাণে/ ঝঞ্ঝা ও ঘন দেয়া স্বণিল রে ঈশানে!’ ৩০ লাইনের কবিতাটি এভাবেই শুরু হয়েছিল।
ইমদাদ আলী দুটি ছবি নিয়েই বিস্তারিত লিখলেন, যার কিছুটা উল্লেখ করছি। তিনি লিখেছেন, ‘প্রথম চিত্র: ইহা একখানি ধর্মচিত্র। পাপের নদী উত্তাল তরঙ্গে ছুটিয়া চলিয়াছে। এই নদীতে কান্ডারীহীন গোমরাহীর তরণী আত্মরক্ষা করিতে না পারিয়া আরোহীসহ নিমজ্জিত হইতেছে। তাহার হালের দিকটা মাত্র ডুবিতে বাকি আছে। তাহার উদ্ধারের কোন আশা নাই। কিন্তু যাহারা তাওহিদের তরণীতে আশ্রয় লইয়াছেন, তাহারা বাঁচিয়া আছেন, কারণ এই তরণীর কর্ণধার হযরত মোহাম্মদ মোস্তফা (স.)। তাহার চারি প্রধান আসহাব এই তরণীর বাহক।
‘দ্বিতীয় চিত্র: পল্লী দৃশ্য। বিক্রমপুরের উত্তর দিকে তালতলা একটি বন্দর। এই বন্দরের পূর্ব দিকের যে গ্রামখানি নদী তীরে বিস্তৃত রহিয়াছে, চিত্রে তাহাই অংকিত হইয়াছে।
‘মৃদুল বায়ু হিল্লোলে নদী বুকে যে তরঙ্গের লীলা আরম্ভ হইয়াছে চিত্রে তাহা বড়ই সুন্দর করিয়া অঙ্কিত হইয়াছে। আলো ও ছায়ার সুসমাবেশে উহা কি মনোরমই না দেখাইতেছে।’
প্রায় শত বছর আগে একজন নারীর, তা-ও আবার রক্ষণশীল সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবার থেকে চিত্রশিল্পী হওয়ার স্বপ্ন বাস্তবে রূপ দেওয়া মোটেই সহজ ছিল না। তখন রক্ষণশীল ধ্যানধারণা পোষণের ফলে বিশেষ করে নারীদের সাংস্কৃতিক চর্চার ক্ষেত্রটি ছিল রুদ্ধ।
সাধারণ নিয়মানুযায়ী ঢাকার নবাববাড়ির মেয়েদের অন্দরমহলই ছিল একমাত্র ঠিকানা। কিন্তু শিল্প সৃষ্টির প্রেরণা যদি একবার সত্তায় জেগে ওঠে, তবে তাকে অবদমন করা সত্যিই কঠিন। আর তাই রক্ষণশীল পরিবার ও সমাজের বাধা অতিক্রম করে নিজেকে চিত্রশিল্পী হিসেবে প্রকাশ করতে পেরেছিলেন মেহের বানু খানম।
ঢাকার নবাব খাজা আহসানউল্লাহর কন্যা মেহের বানু খানমের (নবাব সলিমুল্লাহর ছোট বোন) মায়ের নাম ছিল কামরুন্নেসা খানম। মেহের বানুর জন্ম কবে, সে বিষয়ে সঠিক তথ্য পাওয়া যায়নি। লেখক অনুপম হায়াৎ অনুমান করেন, তাঁর জন্ম ১৮৮৫-৮৮ সালের মধ্যে। হায়াৎ তাঁর পুরনো ঢাকার সাংস্কৃতিক প্রসঙ্গ গ্রন্থে উল্লেখ করেন, ‘তাদের বাড়িতে ছিল দেশ-বিদেশের বহু খ্যাতনামা চিত্র শিল্পীর আঁকা ছবির সংগ্রহ। ছিল অনেক সচিত্র বই-পুস্তক, পত্র-পত্রিকা। তিনি এখান থেকেই অঙ্কন চর্চা শুরু করেন। তবে তাঁর অঙ্কন চর্চায় কখনো কোনো জীবজন্তুর অস্তিত্ব থাকতো না। তিনি সব সময়ই প্রকৃতি ও ইসলামের ধর্মীয় চেতনাকে তাঁর শিল্পসত্তায় ধরে রাখতেন।’
দুঃখজনক বিষয় হলো, মোসলেম ভারত-এ প্রকাশিত ছবি দুটি বাদে মেহের বানুর আঁকা আর কোনো ছবি এখনো খুঁজে পাওয়া যায়নি। তবে মেহের বানুর চিত্রাঙ্কনরত অবস্থার একটি আলোকচিত্র পাওয়া যায়। তাতে দেখা যায়, তিনি ইজেলের ওপরের দিকে সেঁটে রাখা একটি চিত্রের অনুকরণে ঠিক নিচেই আরেকটি কাগজে ছবি আঁকছেন। লক্ষ করলে বোঝা যায়, এটি নদীতে একটি নৌকার দৃশ্য। আলোকচিত্রে দৃশ্যমান চিত্রটি এবং প্রকাশিত অন্য চিত্র দুটি বিবেচনা করলে বোঝা যায় যে তিনি ‘ল্যান্ডস্কেপ’ই বেশি আঁকতেন। এই তিনটিই নদীর দৃশ্য। সুতরাং নদী ও নৌকা, সম্ভবত, তাঁর আঁকা ছবিতে বারবার এসে থাকবে। এ সবই অনুমান মাত্র। মেহের বানুর আরও ছবি পাওয়া গেলে তাঁর ছবির বিষয় ও মান সম্পর্কে একটা ধারণা তৈরি হওয়া সম্ভব হবে।
3 Meher Bano painting 1910'sসম্ভবত, ১৯১২-১৩ সাল থেকে মেহের বানু ছবি আঁকা শুরু করেন। মেহের বানুর বিয়ে হয় ২৫ পৌষ ১৩০৮ বাংলা সালে অর্থাৎ ১৯০২ সালে। তাঁর স্বামী খাজা মোহাম্মদ আজম ছিলেন একজন সাহিত্যিক এবং ঢাকার পঞ্চায়েত সরদারদের তত্ত্বাবধায়ক। ঢাকার ওপর একটি উল্লেখযোগ্য বই দ্য পঞ্চায়েত সিসটেম অব ঢাকা তাঁরই লেখা। এ জন্য সংস্কৃতিমনা স্বামীর কাছ থেকে মেহের বানু শিল্পসাধনায় সহযোগিতা ও অনুপ্রেরণা পেয়েছিলেন।
এই সংস্কৃতিমনা পরিবারের পরবর্তী প্রজন্মের সন্তানেরাও ঢাকার ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনে সেই সময়ে বিশেষ অবদান রেখেছিলেন। তাঁর এক ছেলে খাজা মোহাম্মদ আদিল ছিলেন ঢাকার বিখ্যাত উর্দু সাহিত্যিক ও জাদু পত্রিকার সম্পাদক। খাজা আদিল ও তাঁর ভাই খাজা আজমলের উদ্যোগে ঢাকায় ১৯২৯-৩১ সালে ঢাকার প্রথম চলচ্চিত্র দ্য লাস্ট কিস ও সুকুমারী নির্মিত হয়। দ্য লাস্ট কিস-এর নায়ক ছিলেন খাজা আজমল নিজেই। 
মেহের বানু খানম ১৯২৫ সালের ৩ অক্টোবর ঢাকায় মৃত্যুবরণ করেন। তাঁকে দিলখুশা মসজিদের পূর্ব পাশে নবাব পরিবারের কবরস্থানে সমাহিত করা হয়। এ পর্যন্ত পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তিনিই ঢাকার প্রথম নারী চিত্রশিল্পী।


যাহা বলিবো সত্য বলিবো ১৬ … ঢাকার নবাব, বয়ড়া বিলাস এবং তুই চোর- Is finance minister Muhith from Nawab family?

March 13, 2013

ধীবর Source: Somewhereinblog.net ০৯ ই সেপ্টেম্বর, ২০১২ সকাল ১১:০৩

ঢাকার নবাবদের নবাবি এখন কিংবদন্তি। সেই বৃটিশ আমলে ভাগ্যের অন্বেষনে সুদুর উত্তর পশ্চিম ভারত থেকে আগত সাধারণ ব্যাবসায়ি থেকে রীতিমত ঢাকার একচ্ছত্র অধিপতি হয়ে যাওয়া নবাবদের বিলাসিতার অনেক গল্প এখনো শুনতে পাওয়া যায়। অবাক করার মত বিষয় হলো, আমার জন্মভুমি বাংলাদেশ স্বর্ণগর্ভা হলেও, সেই স্বর্ণ তোলার কাজটি তার স্বীয় সন্তানরাই করতে যুগে যুগে ব্যার্থ। ……আবার ডুবো ঘি তে একবার পরোটা ভাজা হলে, সেই ঘি তে দ্বিতীয়বার আর পরোটা ভাজা হলে নবাবরা সেটা খেতেন না। অর্থাৎ প্রতিবার পরোটা ভাজার সময় নতুন ডুবো ঘিতে সেটা ভাজতে হতো। একেই বলে নবাবি চাল। 

নবাবি আমল নেই। তবে নবাবি চালচলন থেকে থাকবে। তবে সেই মাত্রার নবাবির কথা অন্তত স্বাধীন বাংলাদেশে কেউ শুনেছে বলে মনে হয় না। অতীতের সেই নবাবদের স্মৃতি আবার নতুন করে মনে করিয়ে দেবার কৃতিত্ব দেবো মাননীয় অর্থমন্ত্রিকে। কারণ ৩ হাজার কোটি টাকা তার কাছে কিছু না। অন্তত বক্তব্যের মাধ্যমে তিমি সে রকমই বলেছেন।তার পৈতৃক নিবাস ঢাকায় হলে, বিশ্বাস হতো যে তিনি ঢাকার নবাবদের বংশধর। তাই জানতে বড় ইচ্ছে হয় পৈতৃক নিবাস সিলেটে হলেও, তার বংশে কেউ কোনদিন ঢাকার নবাবদের সাথে সম্পৃত্ত ছিল কি না।কারণ একমাত্র নবাবদের পক্ষ্যেই বলা সম্ভবযে কয়েক হাজার কোটি টাকা তেমন কিছু না

muhit-6-september-2012-2012-09-06__muhith-cartoon-final1                                                                                                                Finance Minister AMA Muhith


গণি মিয়ার খেতাব ও বিশুদ্ধ পানি Clean water by Nawab Khwaja Abdul Ghani

March 13, 2013

শামীম আমিনুর রহমান Source:  Prothom-Alo তারিখ: ২৪-০৫-২০১১

Water Works 1880আজ থেকে ঠিক ১৩৩ বছর আগে, এই দিনে ঢাকা মহানগরে চালু হয়েছিল বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের ব্যবস্থা। ১৮৭৮ সালের ২৪ মে ঢাকার কমিশনার পিকক সাড়ম্বরে এর উদ্বোধন করেন। ঢাকাবাসীর সুপেয় পানি সরবরাহের জন্য অর্থদানসহ সবিশেষ উদ্যোগ ছিল ঢাকার নবাব পরিবারের।
১৮৭১ সালে নবাব আবদুল গণি পেয়েছিলেন কেসিএমআই (কিং কমান্ডার অব দি অর্ডার অব দ্য স্টার অব ইন্ডিয়া) উপাধি। গণি মিয়া নামেই তিনি এলাকায় খ্যাত। খুশি হয়ে ঢাকাবাসীর জন্য কিছু একটা করার কথা ভাবছিলেন তিনি। উপাধি পাওয়ার আনন্দে ঢাকাবাসীর কল্যাণের জন্য দান করলেন ৫০ হাজার টাকা। উদ্দেশ্য ঢাকাবাসীর জন্য বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা করা। তাঁর এই অর্থের সঙ্গে পুত্র নবাব আহসানউল্লাহ যোগ করলেন আরও ৫০ হাজার টাকা। তবে ঢাকা প্রকাশ সূত্রে জানা যায়, ‘নবাব গণি জলের কলের জন্য ৩ বারে ২০০০০০ টাকা দান করেছিলেন।’ এর আগে ঢাকাবাসীর পানীয় জলের উৎস ছিল শুধু মহল্লার পুকুর বা কুয়া। বিশুদ্ধ পানির অভাবে ঢাকায় উদরাময়, কলেরাসহ নানা রোগব্যাধিতে প্রতিবছরই অনেক লোক মৃত্যুবরণ করত।
নবাব আবদুল গণির দান করা টাকা দিয়ে পানি সরবরাহের ব্যবস্থা করার উদ্যোগ নিতে গঠিত হলো কমিটি। মিটিংয়ের পর মিটিং হতে থাকে নবাব ও ইংরেজ কর্মকর্তাদের। লেফটেন্যান্ট গভর্নর জর্জ ক্যাম্পবেলের নির্দেশনায় ঢাকায় বিশুদ্ধ পানি সরবরাহবিষয়ক যেসব চিঠিপত্র চালাচালি হয়েছিল, সেগুলো গেজেট আকারে প্রকাশ করার উদ্যোগ নেওয়া হয়। আর এসব কর্মকাণ্ডের ধারাবাহিকতায় শেষ পর্যন্ত ১৮৭৪ সালে লর্ড নর্থব্রুক ঢাকার ওয়াটার ওয়ার্কস প্রকল্পের ভিত্তি স্থাপন করলেন। তবে সেটা ছিল বাস্তব কাজের সূচনামাত্র। পুরো প্রকল্প নির্মাণ ও পাইপের মাধ্যমে ঢাকাবাসীকে বিশুদ্ধ পানি পেতে আরও অন্তত চার বছর অপেক্ষা করতে হয়েছিল। ঢাকার কমিশনার পিকক ১৮৭৮ সালের এই দিনে দৈনিক দুই লাখ গ্যালন পরিমাণ পানি সরবরাহব্যবস্থার উদ্বোধন করেন। নবাব পরিবারের ব্যয়ের পাশাপাশি সরকারি ব্যয়ের পরিমাণ দাঁড়িয়েছিল নয় লাখ পাঁচ হাজার ৩৫০ টাকা। এটাই এই অঞ্চলের মানুষের বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের প্রথম ঘটনা।
প্রথমে এ কাজে পাইপের দৈর্ঘ্য ছিল চার মাইল আর তা গিয়েছিল তিন দিকে। পানির একটি পাইপলাইন গিয়েছিল মিটফোর্ড হাসপাতাল বা বর্তমান সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজের দিকে। এ পথে ছিল চকবাজার ও কোতোয়ালি এলাকা। অন্যটি কোতোয়ালি থেকে লোহারপুল পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল। নারিন্দা এলাকা ছিল এর আওতাভুক্ত। আর তৃতীয় পানির লাইনটি গিয়েছিল পুরান ঢাকার জেলখানা এলাকায়।


শুরুর চার বছরের মধ্যেই নগরবাসীর মধ্যে সরবরাহ করা পানির চাহিদা বেড়ে যায়। নবাব আহসানউল্লার দানে পরে নবাবপুর থেকে ঠাটারীবাজার হয়ে দিলকুশা পর্যন্ত পানি সরবরাহের জন্য একটি নতুন পাইপলাইন বসানো হয়। এরপর খুব দ্রুততার সঙ্গেই পাইপের মাধ্যমে পানি সরবরাহের আওতাধীন এলাকা বেড়ে গিয়ে ১৮৯৩ সালে প্রায় ১৬ মাইল দীর্ঘ পাইপ বসানোর কাজ সম্পন্ন হয়েছিল।
উল্লেখ্য, প্রকল্পটি শুরুর সময় ঢাকাবাসীর এই সুবিধাপ্রাপ্তিতে পরবর্তী সময়ে তাদের ওপর কর আরোপ করা হতে পারে—এমন আশঙ্কা করেছিল নবাব পরিবার। এটি যাতে না হয়, সে জন্য তাঁরা শর্তজুড়ে দিলেন যে বিশুদ্ধ পানি ব্যবহারকারীদের ওপর কর আরোপ করা চলবে না। কিন্তু পানি সরবরাহব্যবস্থা ব্যয়বহুল বলে এ ব্যবস্থাকে টিকিয়ে রাখতে বছরের পর বছর এর পেছনে অর্থ ব্যয় প্রয়োজন।
প্রকল্প সমাপ্তির পরে তা ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব পৌরসভাকে দেওয়ার জন্য বলা হলে পৌরসভা তাদের পর্যাপ্ত অর্থ নেই বলে পানি সরবরাহের পরিবর্তে ঢাকাতে স্কুল অব আর্টসের জন্য টাকা খরচের প্রস্তাব দেওয়া হয়। কিন্তু নবাব পরিবার তাতে সম্মতি দেয়নি। নবাব আহসানউল্লাহ জানান, শুধু বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের কাজেই এ টাকা ব্যয় করা যাবে। এই কাজে আরও ৫০ হাজার টাকা তিনি দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন। ইংরেজ সরকার ঢাকার নবাবদের জনহিতৈষী কাজে আগ্রহ ও একাগ্রতা দেখে খুবই বিস্মিত হয়েছিল।


Follow

Get every new post delivered to your Inbox.